প্রজাতন্ত্র

0
294
Photo : Kolkata24x7

৷     ১    ।

১৩ বছরের বিনুর আজ খুব আনন্দ।
ইস্কুল আজ ছুটি,
২৬ শে জানুয়ারি –
আনন্দের হাট,চড়ুইভাতির হুড়োহুড়ি;
ঘরে চড়বেনা আজ হাড়ি।
মাস্টারমশাইয়ের কাছে বিনু শুনেছে
২৬ শে জানুয়ারি দেশের মানুষ,
সত্যিকারের স্বাধীনতা  পেয়েছে-
পেয়েছে  মান আর হুশ-
ইচ্ছেমতো  কথা বলবার স্বাধীনতা, অধিকার –
পেটভরে খাওয়ার অধিকার ,
অসুখের সাথে,
কোমর কষে পাঞ্জা  লড়বার  অধিকার –
রোদ্দুর, বৃষ্টি,  বন্যার লালচোখ
বাঁচিয়ে চলবার  অধিকার –
শালীনতা, সম্ভ্রম রক্ষা করে,
সমস্ত অন্যায়কে টুটি চেপে
মারবার অধিকার-
বিচার চেয়ে, ন্যায়বিচারের অধিকার;
অন্যায়ের প্রতিবাদে মুখর হওয়ার অধিকার।
বিনু জানেনা এসবের  মানে-

৷   ২   ।

এতকিছুর অধিকার, কোথায় পাওয়া যায়!
কোথায় এসব কথা লেখা আছে-
সব অজানা!বিনুর কাছে,  অজানা
তাদের পাড়ার সবার কাছে –
বিনুর, এসব কথা শুনলে –
কেমন নতুন নতুন লাগে।
অতকিছুর  প্রয়োজন বিনুদের নেই,
একটু খাওয়া পেটভরে, মাথায় একটা,
ছোট টিনের ছাউনি দেওয়া ছাদ-
আর একটু ওষুধ,  রোগ, বালাইয়ে।
এটুকুই বিনুদের চাওয়া-।
তাদের গ্রামের সবার,
এইটুকুই চাওয়া৷
বিনু জানেনা তার অসুস্থ  মায়ের,
ওষুধ  কাল কে দিয়ে যাবে!
এবেলা ভাত জুটলেও রাতের বেলায়,
শুধুই জল তার ক্ষুন্নিবৃত্তি,  হয়তো করে দেবে!
বিনুরা দুবেলা  ভাতের স্বপ্ন দেখেনা
দেখতে জানেনা৷

৷ ৷  ৩  ।।

বিনু জানেনা আষাঢ়ের প্রথম ধারা,
তাদের ঘর কে নতুন করে,
স্নান করাবে কিনা!
আজ সে কিছুই জানতে চায়না মায়ের কাছে-
কাগজের কয়েকটি  তেরঙ্গা পতাকা নিয়ে,
তাদের বাড়ী থেকে,
নাম না জানা এক জনপদ থেকে
কত মানুষকে সেই কাগজের পতাকা,
বিলি করে যায় বিনু
কোথাও আজ বনভোজন হচ্ছে,কোথাও-
ফুটবল খেলা হবে, দিন – রাতের ;
বিনুদের পাশের পাড়ায়,আজ খেলা হছে
সকাল হতেই,
সবাই যাবে দেখতে,কেউ বা খেলতে,
কোথাও যাত্রাপালা,ম্যাজিকের আসর,
বিনু এসব কিছুই দেখবেনা,
সে আজ মনের খুশীতে,
নিজের আনন্দে,নিজের ছন্দে-
খাঁচা ভেঙে  বেড়িয়ে পড়তে চায়,
সবার মাঝে-
বিনিপয়সায় দেশের কাজ করবার আনন্দে-
“সারে জাঁহাসে আচ্ছা, হিন্দোস্তা হামারা”,
মনের খুশীতে, নিজের ছন্দে,বিনিপয়সায়;
বন্দেমাতরম বলে-
দেশের কাজ করবার আনন্দে-
“সারে জাঁহাসে আচ্ছা”, প্রজাতন্ত্রের মন্ত্রে।।

 

কবি পরিচিতিনীলাঞ্জন চ্যাটার্জী,পশ্চিমবঙ্গ .বিশিষ্ট আইনজ্ঞ,নট- নাট্যকার মিহির কুমার চট্টোপাধ্যায় ও সাহিত্য – শিল্প অনুরাগিনী নিয়তি চট্টোপাধ্যায়ের পুত্র নীলাঞ্জন চট্টোপাধ্যায় – এর সাহিত্য অঙ্গনে প্রবেশ কলেজ জীবনের প্রারম্ভেই।
সেই সময় থেকেই, “ভারতবর্ষ”, “দিশারী”  সহ নানা পত্রিকায় কবির, কবিতা প্রকাশিত হতে থাকে।
কবি, বিজ্ঞান ও চিকিৎসাবিজ্ঞানে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন কোলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে।
পেশার বাইরে সেবামুলক কাজের জন্য স্থাপন করেছিলেন একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা।
ডাঃ চট্টোপাধ্যায়ের চিকিৎসাবিজ্ঞান সংক্রান্ত লেখা, সংবাদপত্রে ও “প্রসাদ” পত্রিকায়  ইতিপূর্বে অনেকবার প্রকাশিত হয়েছে।

 

SOURCENilanjan Chatterjee
Previous article।। উচাটন মন ।।
Next articleবাহুবলী
Avatar
Disclaimer: Monomousumi is not responsible for any wrong facts presented in the articles by the authors. The opinion, facts, grammatical issues or issues related sentence framing etc. are personal to the respective authors. We have not edited the article. All attempts were taken to prohibit copyright infringement, plagiarism and wrong information. We are strongly against copyright violation. In case of any copyright infringement issues, please write to us. লেখার মন্তব্য এবং ভাবনা, লেখকের নিজস্ব - কপিরাইট লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত..................

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here